মৃত্যুর কাছে হার মানলেন মাগুরার সেই ফ্রি’ল্যান্সার ফাহিম

প্রকাশিত: 8:54 PM, November 12, 2020

বাড়িতে বসে ফ্রি’ল্যা’ন্সিং’য়ের কাজ করে স্বা’ব’ল’ম্বী হওয়া সাড়া জাগানো মাগুরার বি’স্ম’য় বালক ফাহিম-উল করিম মা’রা গেছেন। শা’রী’রি’ক প্র’তি’ব’ন্ধী’তা জয় করে ফ্রি’ল্যা’ন্সিং’য়ের কাজ করে সারাদেশেই আলোড়ন তুলেছিলেন ফাহিম।

বুধবার (১১ নভেম্বর) রাত ১১টায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মা’রা যান।

জানা গেছে, ফাহিম-উল করিমের বাসা মাগুরা শহরের মোল্লাপাড়া এলাকায়। বুধবার সকালে অ’সু’স্থ হয়ে পড়লে তাকে ফরিদপুর নেওয়া হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, ডুচেনে মাসকিউলার ডি’স’ট্র’ফি (ডিএমডি) রোগে ভু’গ’ছিলেন ফাহিম।

২২ বছর বয়সী ফাহিম বিরল এক রোগে গোটা শরীর অচল হয়ে যায়। সচল শুধু মাথা ও ডান হাতের দুটি আঙুল। এগুলোকে কাজে লাগিয়ে আ’উ’ট’সো’’র্সিং’য়ের মাধ্যমে মাসে ৫০ হাজার টাকা আয় করে সংসারে স’চ্ছ’লতা ফিরিয়ে আনেন তিনি। ফাহিমের কাজে খুশি হয়ে তথ্য ও যো’গাযোগ প্র’যু’ক্তি (আইসিটি) বি’ভা’গের প্র’তি’ম’ন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক তাকে একটি ল্যা’প’ট’প উপহার দিয়েছেন।

অনেক যুবকের কাছে তিনি অনুকরণীয় ছিলেন। দৃ’ঢ় মনোবল, প্রবল ই’চ্ছা’শক্তি ও মে’ধা কাজে লাগিয়ে ফাহিম সফল ফ্রি’ল্যা’ন্সার হন। ২০১৬ সালে অন্যের সহযোগিতা, প্রা’ই’ভেট পড়িয়ে জমানো টাকা ও ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে তিনি একটি ল্যা’প’টপ কেনেন। এরপর ইন্টারনেটে গুগল ও ইউটিউব ঘেঁটে বিভিন্ন কাজ শিখে নেন।

২০১৭ সালে ফে’স’বুকের মাধ্যমে অনলাইন মা’র্কে’টে ফাইবারে গিগ খুলে কাজ খুঁজতে থাকেন। ক’দিনের মধ্যে পাঁচ ডলারের একটি কাজ পেয়ে যান। অল্প সময়ের মধ্যে সফলভাবে কাজটি করার জন্য বায়ার তাকে আরও ১০ ডলার বোনাস দেন। এরপর থেকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি ফাহিমকে।

কাজের দ’ক্ষ’তার কারণে জনপ্রিয় ফ্রি’ল্যা’ন্সা’র ফাহিম বি’শ্বে’র ৩০ থেকে ৩৫টি দেশের কা’জ করতেন। অর্ডার এত বেশি আসত যে, দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা সময় দিলেও কাজ শেষ করতে পারতেন তিনি। ফ্রি’ল্যা’ন্সা’র হিসেবে কাজ করে গত চার বছর ধরে ফাহিম মাসে গড়ে ৫০ হাজার টাকা করে আয় করেছিলেন।