হেফাজতের রুট আর আমাদের রুট সম্পূর্ণ ভিন্ন: মুফতি ফয়জুল করিম

প্রকাশিত: 7:48 PM, November 16, 2020

হেফাজতের রুট আর আমাদের রুট সম্পূর্ণ ভিন্ন বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর নায়েবে আমির সৈয়দ মুফতি ফয়জুল করিম। গতকাল রোববার (১৫ নভেম্বর) রাতে নরসিংদী এলাকার একটি মসজিদে অনুষ্ঠিত তরবিয়তী ইজতেমায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, আজকে অনেকেই হেফাজত আর চরমোনাইকে বিপরীত মেরুতে দাঁড় করাবার চেষ্টায় আছে! এরাতো বিপরীত মেরুর লোক না। হেফাজতের সাথে চরমোনাই এর তো কোনো সংঘর্ষ নেই। তাদের রুট আর আমাদের রুট সম্পূর্ণ ভিন্ন।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ রাজনৈতিক সংগঠন। হেফাজতে ইসলাম অরাজনৈতিক সংগঠন। দুটোর রুটিই ভিন্ন। ফাসেল হবে কিভাবে? আপনি সংঘর্ষে দাঁড় করান কেন? তারা কি আমার প্রতিপক্ষ?

আমার প্রতিপক্ষ ওই ব্যক্তি যে আল্লাহর জমিনে আল্লাহর হুকুম কায়েম করতে বাধা দেয়!

আর যে আল্লাহর জমিনে আল্লাহর হুকুম কায়েম করতে বাধা দেয় না বরং একই কাজ করে সে আবার আমার প্রতিপক্ষ হয় কিভাবে? আর দ্বিতীয় কথা হল হেফাজত একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ একটি রাজনৈতিক সংগঠন।

তাদের কোনো মার্কা নেই। ইসলামী আন্দোলনের মার্কা আছে। কাজেই আপনাদের সাথে ফাসেল বা বিপরীত হবে কিভাবে? প্রতিপক্ষ হবে কিভাবে? প্রতিপক্ষ বানাচ্ছেন কেন? কে বানাচ্ছে এটা? হেফাজতের সাথে চরমোনাইর বিরোধ যারা করছে তারা শত্রু?

তারা অবশ্যই দুশমন। উভয়ের দুশমন। কেননা আমরা আল্লাহর জমিনে আল্লাহর হুকুমত কায়েম করার চেষ্টা করছি। আর তারা প্রতিবাদ করার জন্য চেষ্টা করছে। একটা হল কায়েম করা। আরেকটা হল প্রতিবাদ করা।

আর প্রতিবাদের জন্য একটি স্টেজ থেকে ভিন্ন ভিন্ন স্টেজ হওয়া ভালো। আজকে যদি এক স্টেজ থেকে প্রতিবাদ করি। যে কোনো প্রতিবাদ যতই বড় হোক না কেন একবার হলো। কিন্তু প্রতিবাদ যদি ভিন্ন ভিন্ন স্টেজ থেকে হয়; তাহলে প্রতিবাদ দীর্ঘ হলো।

সার্বজনীন হলো। এজন্য যারা কোনো প্রতিবাদমুখী সংগঠন তারা আমাদেরই সংগঠন। কারণ প্রতিবাদ করতে গিয়ে যখন কোন হুকুমত কায়েম হবে, তখন তাদের যেহেতু কোনো মার্কা নেই।

তাহলে তারা ইসলামের পক্ষেই সাপোর্ট দিবে। আর যদি তখন ইসলামের বাইরে সাপোর্ট দেয়, তখন আমরা মনে করব, তারা ইসলামের পক্ষের শক্তি না বরং ইসলামের বিপক্ষে শক্তি। তাই তুমি কেন তাকে বিপরীত দাঁড় করাচ্ছো?

হেফাজতের সাথে আমাদের কিসের সংঘর্ষ? হেফাজত আর আমরা ভিন্ন কোনো বস্তু নয়; যখন উভয়টির রুটই ভিন্ন, তখন মোকাবেলা হবে কিভাবে? সেও কর্মসূচি দেবে। তুমিও কর্মসূচি দাও। সমস্যা কি?

তিনি সবার উদ্দেশে প্রশ্ন করে বলেন, আপনারা সবাই যদি ঐক্য চান, তাহলে সমস্ত মাদ্রাসাগুলোকে এক করে ফেলুন। আচ্ছা সমস্ত মাদ্রাসাগুলো এক করা ভালো নাকি ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় করা ভালো? যদি ঐক্য চান তাহলে সমস্ত মসজিদগুলোকে এক করে ফেলুন।

আচ্ছা সমস্ত মসজিদ কি এক জায়গায় আসা ভালো নাকি ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় থাকা ভালো? যদি ঐক্য চান তাহলে সমস্ত মাহফিলগুলোকে এক করে ফেলুন।

মাহফিল কি এক জায়গায় হওয়া ভালো নাকি ভিন্ন ভিন্ন জায়গায় হওয়া ভালো? আমি তো মনে করি এক হয়ে যাওয়া এটা মারাত্মক কঠিন একটি সমস্যা।