হলে উঠতে শিক্ষার্থীদের নিতে হবে টিকা, পেছাবে বিসিএস

প্রকাশিত: 8:04 PM, February 22, 2021

হল খুলে দেয়ার আগেই বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছ বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

পাশাপাশি হল খুলে দেয়ার তারিখ ও সিদ্ধান্তের সঙ্গে মিল রেখে বিসিএস পরীক্ষার সময়সূচি পিছিয়ে দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘২৪ মে থেকে দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের শারীরিক উপস্থিতিতে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হবে। তার এক সপ্তাহ আগে অর্থাৎ ১৭ মে থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো খুলে দেয়া হবে। তবে, হল খুলে দেয়ার আগেই বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের টিকা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’ সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

তিনি আরও জানান, বিশ্ববিদ্যালয় খোলার আগে কোনও পরীক্ষা নেয়া না হলেও অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম চালু থাকবে। এমনকি শিক্ষার্থীরা যেন সমস্যার সম্মুখীন না হয় সেজন্য বিশ্ববদ্যালয় খোলার আগে ৪১তম বিসিএস’র প্রিলিমিনারি পরীক্ষা এবং ৪৩তম বিসিএস’র আবেদন প্রক্রিয়া পিছিয়ে দেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, আগামী ১৯ মার্চ ৪১তম বিসিএস’র প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এছাড়া ৩১ মার্চ পর্যন্ত ৪৩তম বিসিএস’র আবেদন কার্যক্রম চলছে।

এদিকে, বিশ্ববিদ্যালয় এবং আবাসিক খুলে দেয়ার ঘোষণার পরও আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ১লা মার্চ থেকে আবাসিক হল খুলে দেয়ার দাবিতে ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানান, হল খোলার বিষয়ে ৭২ ঘন্টার মধ্যে প্রশাসনের সিদ্ধান্ত জানতে চেয়ে উপাচার্য বরাবর স্মারক লিপি দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, হল খুলে দেয়ার দাবিতে বরিশাল, রাজশাহী ও কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করেছেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে, প্রশাসন ভবনের সামনে বিক্ষোভ করেন কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্বদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তারা জানান, হল বন্ধ থাকায় বেশিরভাগ শিক্ষার্থী বাধ্য হয়ে মেসে থাকছেন। এতে নিরাপত্তাহীনতার পাশাপাশি পড়াশোনারও ক্ষতি হচ্ছে তাদের। একই দাবিতে সকাল থেকে অনশন কর্মসূচি পালন করেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত হল খুলে দেয়ার দাবি জানান তারা। অন্যদিকে, ১লা মার্চের মধ্যে হল খুলে দেয়ার আল্টিমেটাম দিয়ে আন্দোলন স্থগিত করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।