হাটহাজারি মাদরাসা শুধু মুসলমানদের না, এইটা সারা দেশের জনগনের: পিনাকী ভট্টাচার্য

সম্পাদনা শাব্বির আহমদ সম্পাদনা শাব্বির আহমদ

এডিটর টাইমস রিপোর্ট টোয়েন্টিফোর

প্রকাশিত: 8:56 PM, July 8, 2020

ইসলামপন্থীদের জন্য আমার খুব কষ্টই হয়। কিছুদিন আগে হাটহাজারি মাদ্রাসা র‍্যাব পুলিশ আর রায়ট কার দিয়ে ঘেরাও করে, মাদ্রাসা শিক্ষকদের বাসার সামনে পুলিশ পাহারা বসিয়ে দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার নায়েবে মুহতামিম প্রখ্যাত মুহাদ্দিস আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরীকে মুঈনে মুহতামিম পদ থেকে অপমানজনকভাবেই শুধু নয় বিধি ও ঐতিহ্য বহির্ভুতভাবে অপসারন করা হলো। উনার নামে কালিমা লেপন করার চেষ্টা করা হলো।

জুনায়েদ বাবুনাগরীকে যারা চিনেন না, তাদের বলি। উনাকে বাংলাদেশের ইসলামি ঘরানার সক্রেটিস বলতে পারেন। অতি উচ্চমানের হাদিস শিক্ষক এবং চিন্তক তিনি, তরুণেরা উনার নামে পাগল। উনি যখন ক্লাস নেন তখন গোটা মাদ্রাসা উনার ক্লাসে ভাইঙ্গা পড়ে।

বাংলাদেশের প্রত্যেকটা মাদ্রাসার উপরে র‍্যাব, ডিজি এফ আই আর পুলিশের খড়্গ ঝুলতেছে। আজ তারা এই আলেমকে ডাকে তো কাল ওই আলেমকে ডাকে। মোলায়াম করে হুমকি দেয়। হাটহাজারীতে র‍্যাবের নতুন ব্যারাক হইছে। এইসব নিয়া উনারা চুপ থাকেন। আর উনাদের রাগ ঝাড়েন টেন মিনিট স্কুলের উপরে।

আপনারা নিজেরাই নিজেদের প্রশ্ন করেন, আপনাদের প্রাণের হাটহাজারিতে যে নজিরবিহীন ঘটনা ঘটলো তার চাইতে কেন টেন মিনিট স্কুল আপনাদের দিলে বেশী দাগা দিলো?

শেখ হাসিনা এই ইস্যু তৈরি করে, এতে ঘি ঢেলে, নিজের এজেন্সিকে লাগিয়ে আপনাদের ব্যস্ত করে তুললো। হাটহাজারির নজিরবিহীন ঘটনা নিয়া আপনাদের মনে যে পরাজয়ের বেদনা ছিলো; সেটাকে হাসিনা বুদ্ধি খাটায়ে বিজয়ের আনন্দে রুপান্তরিত করলো। আপনারা এখন বিজয়ের আনন্দ নিয়ে ঘরে ফিরবেন এইটা জেনে যে টেন মিনিট স্কুল এখন ইসলামী কনটেন্ট তৈরি করবে। আহা।

ভাইজান টেন মিনিট স্কুল আপনারা বানান নাই। আপনারা হাতি হইলে টেন মিনিট স্কুল পিপড়াও না। কোন দিক দিয়াই না।

আপনারা মাদ্রাসা এডুকেশন বানাইছিলেন, তার সিলসিলা বানাইছিলেন। তার একটা ঐতিহ্য তৈরি হইছিলো। সেইটা নষ্ট হয়ে গেলে আপনি কীভাবে টেন মিনিট স্কুলে ইসলামী কনটেন্ট আপ হইতেছে দেইখ্যা খুশী হন? আপনার নাক কাইট্যা নিয়া যাইতেছে আর আপনি খুশী হইতেছেন যে নরুণ পাইছেন নাকের বদলে? টেন মিনিট স্কুল আপনাদের কোন ক্ষতি করে নাই। আপনাদের ঐতিহ্য যারা ধ্বংস করে দিচ্ছে তাদের দিকে নজর ফেরান।

শেখ হাসিনা অতি ধুরন্ধর রাজনীতিবিদ। সে দক্ষ ম্যাজিশিয়ানের মতো আপনার দৃস্টি একদিকে ধরে রেখে আরেকদিক দিয়া কাম সারবে।

এখন আপনাদের মনে হইতেই পারে, পিনাকী ভট্টচার্য মাদ্রাসা নিয়া লাফায় কেন? জ্বি ভাই, আমার লাফাইতে হয়। কারণ ইন্সটিটিউশন ধ্বংস হইলে বেদনা লাগে। ইন্সটিটিউশন অনেক মানুষের চিন্তায়, কর্মে আর ত্যাগে গড়ে ওঠে, সেইটা হাটহাজারি মাদ্রাসাই হোক আর নটরডাম ক্যাথিড্রালই হোক। নটরডাম ক্যাথিড্রালে আগুন লাগলে যেমন আমি কষ্ট পাই হাটহাজারি নষ্ট হইলেও আমি কষ্ট পাই।

প্যারিসে যেদিন নটরডাম ক্যাথিড্রালে আগুন লাইগ্যা যায়, সেদিন আগুন লাগার কিছুক্ষণ আগেই তার সামনে দিয়া আসছি। আমার ফ্রেঞ্চ ল্যাঙ্গুয়েজ স্কুল ছিলো তার পাশেই। বাসায় ফিরতেই আমার বাড়ি ওয়ালি বলে দেখো টিভিতে। আমি টিভি রুমে যাইতেই আমার চোখের সামনেই টিভি স্ক্রিনে ক্যাথিড্রালের স্পায়ার আগুনে জ্বলতে জ্বলতে হুড়মুড় করে ভেঙে পড়লো। আমি চোখ মুছতে লাগলাম। আমার বাড়িওয়ালি কয় তুমি কান্দো কেন? তুমি কী ক্যাথলিক? আমি বলি নটরডাম কী শুধু ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের? নাকি সারা দুনিয়ার সম্পদ?

হাটহাজারি তাই শুধু মুসলমানদের না, এইটা সারা দেশের জনগনের।

অন্যের সম্পদে মিচ্চি এনা ভাগ পাইছেন, এই আনন্দে আত্মহারা না হইয়া নিজের ঐশ্বর্যের হেফাজত করেন। আপনার ঐশ্বর্য কম নাই।

পিনাকী ভট্টাচার্যের ফেসবুক টাইমলাইন থেকে সংগ্রহ।